দ্য গার্ডিয়ানের খবরের মাধ্যমে জানা গেছে, দুই বছরের কারাদণ্ড হতে পারে সু চির। এর আগে তিনি মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতাচ্যুত হয়েছেন।

ন্যাশলাল লিগ ফর ডেমোক্র্যাসি (এনএলডি) নেত্রী অং সান সু চির নামে আমদানি ও রফতানি আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। বর্তমানে তিনি ১৪ দিনের রিমান্ডে আছেন। আর মামলার অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার ২ বছরের সাজা হবে।

এই মামলার বিবরণী থেকে জানা গেছে, সুচির বাড়িতে তল্লাশি চালানো হয়। তল্লাশিতে তার বাড়ি থেকে কয়েকটি ওয়াকিটকি পাওয়া যায়। এগুলো অনুমোদনহীন ও অবৈধভাবে সু চি’র দেহরক্ষীরা আমদানি করেছে সুচির নির্দেশে। আর এই অভিযোগ প্রমাণিত হলে সু চি’র দুই বছরের কারাদণ্ড হতে পারে বলে তার দলের সদস্যরাই জানিয়েছেন।

এদিকে, দেশটির ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টের বিরুদ্ধেও অভিযোগ আনা হয়েছে। তিনি করোনার বিধিনিষেধ লঙ্ঘন করে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছেন। এমন অভিযোগ করেছে দেশটির সেনাবাহিনী।