সকাল সকাল ঘুম থেকেই উঠেই সবার মনে হয় এক কাপ ধোঁয়া উঠা গরম গরম চায়ের কথাম আর এই শীতের দিন তো চা হলে চলেই না। সমস্যা হয় তখন যখন এই চায়ের সাথে মাত্রতিরিক্ত চিনিও খাওয়া হয়ে যায়। অনেকে আবার সকালের নাস্তায় বা বিকেলের নাস্তায় মিষ্টি জাতীয় খাবার খেতে পছন্দ করেন। এই অতিরিক্ত চিনি খাওয়ার এই প্রবনতা আমাদের শরীরের জন্য খুব খারাপ।

আমাদের মধ্যে অনেকেই মনে করেন যে শুধুমাত্র যাদের ডায়াবেটিস আছে তাদের জন্যে চিনি খাওয়া খারাপ কিন্তু এই কথাটির কোন ভিত্তি নেই। অতিরিক্ত চিনি খাওয়া সবার জন্য ক্ষতিকর। চিনি খেলে শুধু যে আপনি মুটিয়ে যেতে পারেন তা নয়, বরং সে সহ অনেক মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে আপনার। দেখে নিন অতিরিক্ত চিনি-র কয়েকটি অপকারিতা।

ফ্যাটঃ

অতিরিক্ত চিনি খাওয়ার জন্য সর্বপ্রথম যে সমস্যা শরীরে বাসা বাধে তা হল ফ্যাট। এই ফ্যাট আমাদের শরীরের বাসা বাধার পর থেকে শুরু হয় নানা ধরনের রোগের আগমন। এই ফ্যাট সবার আগে জমে আমাদের তলপেটে ও চিবুকে তারপর তা ছড়িয়ে পরে সারা শরীরে। আমাদের মধ্যে অনেকেই এই তলপেটের চর্বি বা ফ্যাট কে খুব বেশি গুরুত্ব দেয় না কিন্তু তা ঠিক না। তলপেটের এই চর্বি বা ফ্যাট বাচ্চা না হওয়ার কারন হয়ে দাড়ায়।

মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতাঃ

অতিরিক্ত চিনি খাওয়ার জন্য ধীরে ধীরে আপনার আপনার মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা কমে যায়, সেই সাথে হ্রাস পাই আপনার স্মরণশক্তি। চিকিৎসকরা বলছেন একজন ব্যাক্তি যদি প্রতিদিন অতিরিক্ত চিনি খান তাহলে তার মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা অন্য একজন সাধারন ব্যাক্তির থেকে অনেক কম হয়ে থাকে।

ডায়াবেটিস :

নানা গবেষণায় দেখা গিয়েছে একজন সুস্থ মানুষ যদি দৈনিক ১৫০ ক্যালোরি চিনি গ্রহণ করে করে থাকেন তাহলে তার ডায়াবেটিসের ঝুঁকি প্রায় ১.১ শতাংশ বেড়ে যায়। এছারাও অতিরিক্ত চিনি খাওয়ার জন্য ধমনির দেয়ালের পুরুত্ব বেড়ে যায় যা রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ার অন্যতম প্রধান কারন।