ক্রিকেটপ্রেমীদের নিশ্চয়ই ২০১৬ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার ম্যাচের কথা মনে আছে। যে ম্যাচে শেষ ওভারের উত্তেজনায় ১ রানে হেরেছিল বাংলাদেশ। ক্ষতবিক্ষত হয়েছিল ক্রিকেটার ও ভক্তেদের হৃদয়।

ওই ম্যাচে শেষ ৩ বলে জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ২ রান। ওই মুহূর্তে ক্রিকেজ ছিলেন মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের মতো দুজন অভিজ্ঞ ক্রিকেটার। কিন্তু দুজনই আউট হয়ে যান। শেষমেশ টাইগারদের হাতের মুঠো থেকে ফসকে যায় ম্যাচ।

কিন্তু সেই ভুল আর আজ করেননি মুশফিক ও রিয়াদ। রবিবার জয় দিয়ে ভারত সফর শুরু করেছে বাংলাদেশ। তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে স্বাগতিকদের ৭ উইকেটে হারিয়েছে টাইগাররা। টি-টোয়েন্টিতে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের এটি প্রথম জয়।

এদিন ভারতের দেয়া ১৪৯ রানের টার্গেটে ব্যাটংয়ে নেমে শুরু থেকে উইকেট হাতে রেখে দারুণভাবে এগোতে থাকে বাংলাদেশ। কিন্তু রান ও বলের মধ্যে পার্থক্য একটু বেশিই ছিল। শেষ দিকে এসে ম্যাচ বের করাটা খানিকটা কঠিন ছিল। কিন্তু সেই কঠিন কাজই করে দেখিয়েছেন মুশফিকুর রহিম।

শেষ দুই ওভারে জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ২২ রান। হাতে ছিল তিন উইকেট। ১৯তম ওভারে বোলিংয়ে আসেন পেসার খলিল আহমেদ। ওভারের প্রথম বলে সিঙ্গেল নেন মুশফিক। দ্বিতীয় বলে সিঙ্গেল নিয়ে মুশফিককে স্ট্রাইক দেন রিয়াদ।

স্ট্রাইকে গিয়ে পরপর চার বলে চারটি চার মারেন মুশফিক। এখানেই জয় প্রায় হাতের মুঠোয় চলে আসে। শেষ ওভারে প্রয়োজন ছিল ৪ রান। শেষ ওভারে বোলিংয়ে আসেন দীপক চাহার। প্রথম বলটি ডট হলেও দ্বিতীয় বল থেকে ২ রান নেন রিয়াদ। পরের ডেলিভারিটি ওয়াইড হয় এবং সেই সাথে স্কোর লেভেল হয়ে যায়। তৃতীয় বলে ছক্কা মেরে দলের জয় নিশ্চিত করেন রিয়াদ। ৪৩ বলে ৬০ রান করে অপরাজিত থেকে ম্যাচসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার পান মুশফিকুর রহিম।