এলপিজি গ্যাসের (সিলিন্ডার গ্যাস) সব্বোর্চ খুচরা মূল্য নির্ধারণ করে তা গায়ে লিখতে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। আগামী ১ মার্চ বিষয়টি আদালতকে অবহিত করতে জ্বালানি সচিব, বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের চেয়ারম্যান এবং ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিকারের মহাপরিচালককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

একইসঙ্গে আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে মিল রেখে এলপিজি গ্যাসের (সিলিন্ডার গ্যাস) মূল্য নির্ধারণের জন্য কমিটি গঠনের কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, রুলে তাও জানতে চাওয়া হয়েছে। আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

সোমবার (২০ জানুয়ারি) বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এর আগে গত ১৩ জানুয়ারি এলপিজি গ্যাসের (সিলিন্ডার গ্যাস) মূল্য নির্ধারণের জন্য কমিশন গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট দায়ের করা হয়। রিটে সিলিন্ডারের গায়ে দাম উল্লেখ করারও নির্দেশনা চাওয়া হয়।

আইনজীবী মনিরুজ্জামান লিংকন এ রিট দায়ের করেন। রিটে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্টদের রিটে বিবাদী করা হয়।

পরে রিটকারী আইনজীবী মনিরুজ্জামান লিংকন সাংবাদিকদের বলেন, ‘আদালত এলপিজি গ্যাসের (সিলিন্ডার গ্যাস) বোতলের গায়ে সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য নির্ধারণ করে তা বোতলের গায়ে লেখার জন্য কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তা জানতে রুল জারি করেছেন একইসঙ্গে এ বিষয়ে আগামী ১ মার্চ আদালতকে পদক্ষেপের বিষয়টি জানাতে বলছেন।’

এ আইনজীবী আরও বলেন, ‘আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে মিল রেখে সিলিন্ডার গ্যাসের মূল্য নির্ধারণে কেন কমিটি গঠন করা হবে না তা জানতে চেয়ছেন। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে।