চলছে শীতকাল। সকালে গরম গরম এক কাপ কফি না হলে দিন শুরু করাই মুশকিল। আবার বিকেলে কাজের ফাঁকে হয়ে যায় আরও এক কাপ। কিন্তু দিনে যদি তিন কাপ কফি পান করতে পারেন, তাহলেই আপনি নিশ্চিন্ত। গবেষণা বলছে, তিন কাপ কফি দিনে পান করলে আপনার আয়ু বাড়াবে। ১০টি ইউরোপীয় দেশের প্রায় পাঁচ লক্ষ মানুষের ওপর এই সংক্রান্ত একটি গবেষণা চালিয়ে দেখেই এই সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছে। আর তার ভিত্তিতেই গবেষকরা এই দাবি করছেন।

অ্যানালস অব ইন্টারনাল মেডিসিন নামক এই গবেষণায় বলা হয়, এক কাপ অতিরিক্ত কফি মানুষের আয়ু বাড়াতে পারে। এই কফি যদি ডিক্যাফিনেটেড বা ক্যাফিনবিহীনও হয়, তাহলেও হবে। লন্ডনের ইম্পেরিয়াল কলেজের গবেষকরা বলেন, বেশি কফি পানের সঙ্গে মৃত্যু ঝুঁকি কমে, বিশেষ করে হৃদরোগ এবং পাকস্থলীর রোগে মৃত্যুর ঝুঁকি কমে।

কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক স্যার ডেভিড স্পিগেলহালটার বলছেন, যদি এই গবেষণা সঠিক হয়, তাহলে প্রতিদিন এক কাপ অতিরিক্ত কফির কারণে একজন পুরুষের আয়ু তিন মাস এবং একজন নারীর আয়ু এক মাস বেড়ে যেতে পারে।

তবে এই গবেষণার ব্যাপারে অনেকের প্রশ্ন আছে। তারা বলছেন, কফি মানুষের আয়ু বাড়াচ্ছে, নাকি কফি পানকারীদের জীবন প্রণালীর কারণে তারা বেশিদিন বাঁচছেন সেটা পরিষ্কার নয়। এর আগের গবেষণাগুলোতে অবশ্য মানবদেহের ওপর কফির প্রভাব সম্পর্কে পরস্পরবিরোধী ফল পাওয়া গিয়েছিল। কফিতে যে ক্যাফিন থাকে, তা সাময়িক সময়ের জন্য মানুষকে অনেক বেশি সজাগ রাখতে পারে। কিন্তু বিভিন্ন মানুষের ওপর ক্যাফিনের প্রভাব বিভিন্ন রকমের।

ব্রিটেনের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস সন্তান সম্ভবা নারীদের দিনে ২০০ গ্রামের বেশি ক্যাফিন গ্রহণ করতে নিষেধ করে। কফি বেশি পান করলে নবজাতক শিশুর আকার খুব ছোট হতে পারে বলে মনে করা হয়। আবার সুইডেনের উমিয়া ইউনিভার্সিটির গবেষণা বলছে, দিনে তিন কাপ কফি যারা পান করেন, তাদের ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই কম। তুলনায়, যারা কফি পান করেন না তাদের টাইপ-২ ডায়াবেটিস হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে।