আমাদের সকলের ত্বকেই পোর থাকে কিন্তু সবার পোরের ধরন এক রকম নয়। বেশীর ভাগ সময় এই পোর আমাদের নজরে পরে না কারন তা খুব একটা বোঝা যায় না। সাধারন ট্যালকম পাউডার ব্যাবহার করলেই তা বোঝা যায় না কিন্তু সমস্যাটা হয় তখন, যখন এই পোর বড় হয়ে যায় ও স্পষ্ট ভাবে দেখা যায়।পোরের এই সমস্যা  কিভাবে দূর করা যায় তা জানার আগে আমাদের যা জানতে হবে তা হল, কি কারনে এই  পোরের সমস্যা তৈরি হয়।
পোরের এই সমস্যা তৈরি হওয়ার পেছনে যে কারন গুলো রয়েছে তা হল –
১। নিয়মিত মুখ পরিষ্কার না করা।

২। মুখে নিয়মিত সানস্ক্রিম না ব্যাবহার করা।

৩।দীর্ঘদিন ব্রন বা র‍্যাশের সমস্যায় ভোগা ।

৪।মুখে মেকআপ নিয়ে ঘুমিয়ে পরা।

এই চারটি সমস্যার জন্য সাধারনত সবার পোরের সমস্যা হয়ে থাকে। তাহলে এবার দেখা নেওয়া যাক যে কিভাবে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

মুখ পরিষ্কার

পোরের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে আপনাকে সবার আগে যা করতে হবে তা হল সঠিক নিয়মে মুখ পরিষ্কার। আপনাকে প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে ও রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ফেসওয়াস দিয়ে মুখ পরিষ্কার করতে হবে। এই সময় যদি আপনি হালকা গরম পানি ব্যাবহার করেন তাহলে আরও ভাল ফল পাবেন।

সানস্ক্রিম ব্যাবহার   

বাহিরে কিংবা রান্নাঘরে যাওয়ার কমপক্ষে ২০ মিনিট আগে আপনাকে সানস্ক্রিম ব্যাবহার করতে হবে। এই বিষয়টি আপনার কখনই মিস করা যাবে না। সূর্যের অতি বেগুনী রশ্মি আপনার মুখের ত্বক কে খুব সহজেই নষ্ট করে ফেলে আর এই রশ্মি থেকে বাঁচতে আপনাকে অবশ্যই সানস্ক্রিম ব্যাবহার করতে হবে। শুধু সূর্য নয় রান্না ঘরের তাপও, আপনার ত্বক কে নষ্ট করে ফেলে তাই রান্না করার সময়ও অবশ্যই সানস্ক্রিম ব্যাবহার করবেন।

ব্রন বা র‍্যাশের সমস্যা 

আপনি যদি দীর্ঘদিন ধরে ব্রন বা র‍্যাশের সমস্যা ভুগে থাকেন, অনেক কিছু ব্যাবহার করার পরও যদি তা ভালো না হয়, তাহলে আর দেরি না করে অবশ্যই ডাক্তারের শারনাপন্ন হন। এই ব্রন বা র‍্যাশের সমস্যা আপনার রক্তের সমস্যা থেকেও হতে পারে। তবে ডাক্তারের কাছে যাবার আগে, আপনি মুখে কাচা নিম পাতার রস লাগিয়ে দেখতে পারেন। আপনার যদি সাধারন ব্রন বা র‍্যাশ হয়ে থাকে তাহলে নিম পাতার রস ব্যাবহারে তা এক সপ্তাহে দুর হয়ে যাবে।

মেকআপ  

মুখে সময় কম মেকআপ ব্যাবহার করার চেষ্টা করুন। মেকআপ করার আগে অবশ্যই মুখে টোনার ব্যাবহার করুন। টোনার যদি না থাকে তাহলে আপনি চাইলে গোলাপজল ব্যাবহার করতে পারেন। আর রাতে ঘুমনোর আগে খুব ভাল ভাবে মেকআপ তুলে ফেলবেন। সব থেকে ভালো হয়, যদি এই মেকআপ উঠানোর পর মুখে কোন উপটান বা মাস্ক ব্যাবহার করেন তাহলে। এই চারটি নিয়ম নিয়মিত ফলো করতে থাকুন, এক সপ্তাহেই ভাল ভাবে ফলাফল বুঝতে পারবেন। এই সবের সাথে যদি আপনি এই পোরের সমস্যা ভাল করার জন্য কোন ক্রিম বা জেল ব্যাবহার করতে চান তাহলে তাও নিশ্চিন্ত ভাবে করতে পারবেন।