পাকিস্তানে এবার নিষিদ্ধ হল ‘কুমারিত্ব পরীক্ষা’। ধর্ষণের পর মেয়েদের কুমারিত্ব পরীক্ষা করা হয়, যা এবার বন্ধ হল। আর এর রায় দিল পালিস্তান আদালত। এ তথ্যটি জানা গেছে ব্রিটিশ এক সংবাদমাধ্যম থেকে। সেখানে বলা হয় আদালতের এ রায়কে মানবাধিকারকর্মীরা স্বাগত জানিয়েছে।

পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হল। যার ফলে আর সেখানে ধর্ষণের ঘটনায় কোনো নারীকে ‘টু ফিঙ্গার টেস্ট’-এর মতো জঘন্য পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হবে না। কারণ অতীতে এই বিষয়টিতে পাকিস্তানের নারীরা খুবই ইতস্তত বোধ করত।

লাহোর হাইকোর্টের বিচারক আয়েশা মালিক বলেন, এ ‘টু ফিঙ্গার টেস্ট’ পরীক্ষা একটি নারীর জন্য খুবই ‘অসম্মানজনক’ এবং ফরেনসিক মূল্য ছিল না। মানবাধিকারকর্মীদের করা দুটি পিটিশনের ভিত্তিতে এই রায় এলো।

এদিকে ধর্ষণের ঘটনায় কুমারিত্ব পরীক্ষা বন্ধের জন্য দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়ে আসছিলেন মানবাধিকারকর্মীরা। বিশেষ করে ধর্ষণের ঘটনায় ভুক্তভোগী কোনো নারী আবারও যেন বিড়ম্বনায় না পড়েন, তা চাচ্ছিলেন তারা। আর এই বিষয়টি খেয়াল করেই তারা এই বিষয়টির একটি দ্রুত নিষ্পত্তি চেয়েছিল। অবশেষে তারা সফল হলেন।

জানা গেছে, পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশেও এ ধরনের একটি পিটিশন ঝুলে আছে। সেখানেও মানবাধিকারকর্মীরা কুমারিত্ব পরীক্ষা বন্ধের দাবি জানিয়ে আসছেন বহুদিন ধরে। কিন্তু এর সুরাহা এখনো হয়নি। তবে খুব শিঘ্রই সেটিরও সমাধান হবে বলে আশাবাদি মানবাধিকারকর্মীরা

সূত্র : বিবিসি।