দুপুরের খাবার রান্নার বিষয় নিয়ে বাকবিতণ্ডার জেরে মাগুরার মহম্মদপুরে বড় ভাই সাখাওয়াত মোল্যার রডের আঘাতে নিহত হয়েছে ছোট ভাই আলমগীর মোল্যা (১৫)। এ ঘটনায় সাখাওয়াতকে বৃহস্পতিবার বিকালে আটক করে পুলিশে দিয়েছে এলাকাবাসী। আলমগীর ও সাখাওয়াত উপজেলার ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের লিয়াকত মোল্যার ছেলে।

প্রতিবেশী শাহানাজ হোসেন জানান, গত বুধবার সকালে বড়ভাই সাখাওয়াত রাজমিস্ত্রীর কাজে যান। বাড়িতে মা-বাবা না থাকায় ছোট ভাই আলমগীর দুপুরের খাবার রান্না করেন।

দুপুরে কাজ থেকে ফিরে খাবার খেতে গেলে রান্না করা ভাত নরম ও তরকারিতে লবণ বেশি হওয়ায় বড় ভাই সাখাওয়াত রেগে যান। এ সময় ছোট ভাই আলমগীর যা আছে তাই খেতে বলে অন্যথায় নিজে রান্না করে খাওয়ার কথা জানায়।

বিষয়টি নিয়ে বাকবিতণ্ডার জের ধরে বড় ভাই লোহার রড দিয়ে আলমগীরের মাথায় আঘাত করে গুরুতর জখম করেন। ছোট ভাইয়ের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে বড় ভাই পালিয়ে যান। গুরুতর জখম অবস্থায় আলমগীরকে প্রথমে মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে ফরিদপুর থেকে রাতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে আলমগীরের মৃত্যু হয়। ছোট ভাইয়ের মৃত্যুর সংবাদে এলাকাবাসী বড় ভাই সাকাওয়াতকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে।

মহম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তারক বিশ্বাস জানান, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবির সিদ্দিকী শুভ্র ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ বিষয়ে এখনো কোনো মামলা হয়নি। তবে বড় ভাই সাখাওয়াত মোল্যাকে এলাকাবাসী বৃহস্পতিবার বিকালে আটক করে পুলিশে দিয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে খুনের ঘটনায় লোহার রড জব্দ করেছে পুলিশ।

0000

আজকের জনপ্রিয়

0000