পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে পদত্যাগে দুই দিনের সময় দিয়েছেন দেশটির অন্যতম বিরোধী দল জমিয়তে উলামা-ই-ইসলামের প্রধান মাওলানা ফজলুর রহমান।

তিনি বলেন, ইমরান যদি এই সময়ের মধ্যে পদ থেকে সরে না দাঁড়ান, তবে ভিন্ন কৌশল নিতে আমরা বাধ্য হবো। এরপরে আমাদের ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে যাবে।

এছাড়া পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে অপসারণে আজাদি মার্চের সফলতা দেখতে চান দেশটির ক্ষমতাচ্যুত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ।

দলটির নেতা আহসান ইকবাল বলেন, নওয়াজ এই আজাদি মার্চের সফলতা দেখতে চাচ্ছেন।

বিক্ষোভকারীদের সামনে দেয়া এক ভাষণে তিনি বলেন, জনগণের ভোটকে সম্মান না করায় আঞ্চলিক দেশগুলো আমাদের ছেড়ে গেছে।

বিক্ষোভে লাখো মানুষের জমায়েত হয়েছে। বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে,দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে গাড়িতে করে হলুদ পাঞ্জাবি ও পাগড়ি পরা দাঁড়ি-টুপিওয়ালা মানুষের ঢল এসেছে ইসলামাবাদে।

বিবিসির প্রতিবেদক লক্ষ্য করেছেন, লাখো মানুষ এসে জড়ো হলেও তাদের মধ্যে একজন নারীও নেই! বরং রাজধানীর উদ্দেশে মার্চ শুরুর আগে লিফলেট বিতরণ করে জমিয়তে উলামা। তাতে নারীদেরকে ঘরে থেকে নফল নামাজ ও রোজা রেখে দোয়া করার জন্য আহ্বান জানানো হয়। বিক্ষোভকারীরা নারী সাংবাদিকদেরকেও বিক্ষোভস্থলে ঢুকতে দিচ্ছেন না।

টুইটারে বেশ কয়েকজন নারী সাংবাদিক বিক্ষোভ কভার করতে গিয়ে হয়রানির শিকার হয়েছেন বলেও অভিযোগ করেছেন। এরপর জমিয়ত প্রধান মাওলানা ফাজলুর রহমান ঘোষণা করেন, ‘পূর্ণাঙ্গ পোশাক’ পরে নারী সাংবাদিকরা বিক্ষোভ কভার করতে পারবেন।

এদিকে পাকিস্তানের দুটি বড় রাজনৈতিক দল পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) ও পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) ইমরান খানবিরোধী আন্দোলনের অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ না নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে।

নির্বাচনে কারচুপি করে ক্ষমতায় আসার অভিযোগে ইমরান খানকে অপসারণের দাবিতে জমিয়ত উলামা-ই-ইসলামের প্রধান মাওলানা ফজলুর রহমান এই বিক্ষোভের ডাক দিয়েছেন।-খবর ডন অনলাইনের

দুই দলের নেতাকর্মী ও কর্মকর্তারা বলছেন, তারা ইতিমধ্যে মাওলানাকে সরাসরি বলেছেন যে তারা কেবল জনসমাবেশে অংশ নেবেন এবং কোনো অবস্থান কর্মসূচিতে সমর্থন দেবেন না।

অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নেয়ার পরিপ্রেক্ষিতে নেতাকর্মী ও সক্রিয় ব্যক্তিদের সুনির্দিষ্ট নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে বলে ওই দুই দলের নেতাকর্মীরা জানান।

পিএমএল-এনের মহাসচিব আহসান ইকবাল বলেন, আমরা মাত্র একদিন এসেছিলাম। দলটির বর্তমান প্রধান শাহবাজ শরীফের সঙ্গে তিনিও আজাদি মার্চে অংশ নিয়েছিলেন।

এছাড়া নেতাকর্মীদের কেবল একদিন আজাদি মার্চে অংশ নিতে নির্দেশ দিয়েছেন নওয়াজ শরিফ বলে তিনি জানিয়েছেন। পাকিস্তান পিপলস পার্টির মহাসচিব ফরহাতুল্লাহ খান বাবর বলেন, দলীয় নেতৃবৃন্দ বহুদলীয় সম্মেলনে এটা স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে দল অনির্দিষ্টকালের অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নেবে না।

এ সংক্রান্ত আরও

                         

 

আরও সংবাদ