খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডাইনামিক। মানুষ যেটা চায় তিনি সেটা করেন।

প্রধানমন্ত্রী নিজেই ধর্ষকের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা করেছেন এবং আন্দোলন শুরু করেছেন। তিনিই নারী আন্দোলন ও নারী নেতৃত্বের পুরুধা।

তিনিই জিহাদ ঘোষণা থেকে শুরু করে ধর্ষকের বিরুদ্ধে আইন পাশ করেছেন, নির্দেশনা দিচ্ছেন, আসামি ধরছেন এবং ইতিমধ্যেই মন্ত্রী সভায় মৃত্যুদণ্ড আইন পাস করেছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে করোনার সম্ভাব্য দ্বিতীয় পর্যায়ে সংক্রমণ মোকাবেলায় প্রস্তুতি, করনীয় এবং আসন্ন শারদীয় দুর্গা পূজা উদযাপন সংক্রান্ত মত বিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য এসব কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, সরকার এত কিছুর করার পরেও যারা শেখ হাসিনার পদত্যাগ চায় এর সাথে পদত্যাগের কোনো কারণ বা ঘটনা নেই। এগুলো যারা বলেন তারা স্বার্থান্বেষী দল।

মন্ত্রী আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে স্বাস্থ্যখাতে দিক নির্দেশনা দিয়ে করোনাকে মোকাবেলা করেছেন। করোনা সময়ে খাদ্যেও কোনো ব্যত্যয় ঘটেনি।

করোনাভাইরাস, বন্যা আম্ফানসহ পাঁচটি দুর্যোগ মোকাবেলা করে খাদ্যের কারণে কোনো মানুষ না খেয়ে মারা যায়নি। তার সুযোগ্য নেতৃত্বের কারণে অর্থনীতির চাকা আবার ঘুরে দাঁড়িয়েছে।

এ সময় মন্ত্রী শারদীয় দুর্গা পূজা উদযাপন সম্পের্কে বলেন, বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ। ধর্ম যার যার উৎসব সবার। শারদীয় দুর্গা পূজা উৎসব সনাতন ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব।

জাতি ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে একাকার হয়ে যায়। করোনাভাইরাসের কারণে এবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও মাস্ক পরিধান করে ছোট পরিসরে শুধুমাত্র দেবী মায়ের যে পূজা সেটাতেই আমারা সীমাবন্ধ থাকতে চাই। 

সভায় জেলা প্রশাসক মো. হারুন অর রশিদের সভাপতিত্বে সংসদ সদস্য ছলিম উদ্দির তরফদার, ভূমি সংস্কার বোর্ডের চেয়ারম্যান ইয়াকুব আলী পাটোয়ারী, পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান, পৌর মেয়র নাজমুল হক সনি, পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি নির্মল কৃষ্ণ সাহা, সাধারণ সম্পাদক বিভাষ মজুমদার গোপাল, নওগাঁর সিভিল সার্জন, সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়কসহ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।