সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রশ্ন ফাঁসের গুজব প্রতিরোধে সরকার সতর্ক রয়েছে জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, এ ব্যাপারে আমাদের গোয়েন্দা নজরদারি রয়েছে।

তিনি বলেন, পূর্বে দেখেছি কিছু প্রতারক চক্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসের গুজব ছড়িয়ে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এ ব্যাপারে সরকারের নজরদারি চলছে। আশা করছি, এবার কোনো প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনা ঘটবে না।

শনিবার সকালে ঢাকার কেরানীগঞ্জের জিঞ্জিরা পিএম পাইলট উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) সমমান পরীক্ষায় হল পরিদর্শন শেষে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

সারাদেশে শনিবার থেকে শুরু হয়েছে চলতি বছরের জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা। দেশের ২ হাজার ৯৮২টি কেন্দ্রে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ২৯ হাজার ২৬২ প্রতিষ্ঠানের ২৬ লাখ ৬১ হাজার ৬৮২ জন শিক্ষার্থী জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় অংশ নেয়।

পরীক্ষার সময় কেন্দ্র পরিদর্শনকালে শিক্ষার্থীদের অসুবিধা হয় জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, এজন্য আমরা পরীক্ষা শুরু হওয়ার আগেই কেন্দ্র পরিদর্শন করেছি।

অভিভাবকদের উদ্দেশে দীপু মনি বলেন, সন্তানদের পরীক্ষা কেন্দ্রে ভালো প্রস্তুতি নিয়ে পাঠাবেন। আপনারা যদি সন্তানের ভালো ফলাফলের জন্য অনৈতিক পদ্ধতি অবলম্বন করেন, তবে তাদের ভবিষ্যৎ নষ্ট হবে।

এসময় শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক, ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. জিয়াউল হক, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) কেরানীগঞ্জ সার্কেল কামরুল হাসান সোহেল, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নিলুফার জাহান ও পি এম পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্র পরিচালক উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এ সংক্রান্ত আরও

                         

 

আরও সংবাদ