প্রেম মানেনা কোন কিছু। ভালবাসার মানুষকে ফিরে পেতে মানুষ অনেক কিছুই করতে পারে। ভালোবাসার মানুষটির হারানো ভালোবাসা ফিরে পেতে মানুষ যে কত কি করতে পারে তার জলজ্যান্ত প্রমাণ হল মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জের এক যুবকের কর্মকান্ড।

এই যুবকের নাম কাফি। তার অভিযোগ তার স্ত্রী মরিয়মকে আর শ্বশুর বাড়ির লোকেরা জোর করে আটকে রেখেছে। আর এই কারণেই তিনি একটি প্ল্যাকার্ড হাতে তার শ্বশুর বাড়ির সামনে বসে পড়েছেন। সেই প্ল্যাকার্ডে লেখা আছে- ‘আমার বউ ফেরত চাই’। তিনি জানান তার স্ত্রীকে ফেরত না পাওয়া পর্যন্ত তিনি সেখান থেকে নড়বেন না।

মূলত ৪ বছর কাফি ও মরিয়মের মধ্যে প্রণয় ঘটে। কিন্তু কাফি বেকার হওয়ায় মরিয়মের বাড়ির লোকজন তাদের মেনে নেয়নি। যার ফলে মরিয়ম ও কাফি দুবার পালিয়ে যায়। কিন্তু ২ বারই ধরা পড়ে। এরপর তৃতীয় তারা পালিয়ে একেবারে বিয়েই করে ফেলে। এরপর তারা বেশ কয়েকমাস একসাথে সংসার করে। কিন্তু এরপর আবার মরিয়মের বাড়ির লোকজন মরিয়মকে আবার তাদের সাথে নিয়ে আসে। এরপর কাফি বিভিন্ন চেষ্টা করেও তার স্ত্রীকে ফেরত পায়নি। তার স্ত্রীর পরিবারের দাবি বেকার জামাইয়ের সাথে তাদের মেয়ে সুখে নেই।

এই সকল ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে কাফির দাবি তার স্ত্রীকে তারা জোর করে আটকে রেখেছে। তার স্ত্রী স্বামীর সাথেই থাকতে চায়। তাই কোন উপায় না দেখে কাফি তার স্ত্রী মরিয়মের বাড়ির সামনে প্ল্যাকার্ড হাতে বসে পড়ে ও ঘোষণা দেয় যে, সে তার বউকে না ফেরত পাওয়া পর্যন্ত এখান থেকে সরবে।

এদিকে এই ঘটনায় সমস্ত এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। তবে এই বিষয়ে একজনো মরিয়মের বাড়ির লোকজনের কোন রকম প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, অতীতেও এই রকম হারানো ভালোবাসা ফিরে পেতে অনেক যুবককে এই রকম কর্মকান্ড করতে দেখা গিয়েছিল। আর এতে অনেকে সফল হয়েছে, আবার অনেকে বিফল হয়েছে। কাফির জীবনে কি ঘটতে চলেছে তা এলাকাবাসী দেখতে চায়।

0000

আজকের জনপ্রিয়

0000