বিগ বস ১৩-র সঞ্চালক তথা বলিউড তারকা সলমান খানের মুম্বইয়ের বাংলোর বাইরে নিরাপত্তা জোরদার করল মুম্বই পুলিশ। শুক্রবার থেকেই বাড়ির বাইরে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। কারণ, বিগ বস ১৩ নিয়ে আপত্তি তুলেছে একাধিক সংস্থা। তা বিতর্ক এখন চরমে।

শুক্রবার সকাল ১১টা নাগাদ সলমানের বান্দ্রার বাড়ির সামনে গিয়ে একদল লোক বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে। পুলিশ পরে বিক্ষোভকারীদের আটক করেছে। বিক্ষোভকারীদের মধ্যে মহিলাও রয়েছেন। জোন ৯-এর ডিসিপি পরমজিত সিং দাহিয়া জানিয়েছেন, ‘সলমানের বাড়ির বাইরে কিছু লোক জমায়েত হয়েছিল বিক্ষোভ দেখাতে। আমাদের পুলিশ সেখানে ছিল।’ বিক্ষোভ দেখিয়েছে কারনি সেনাও।

নিরাপত্তা বাড়িতে সলমানের বাড়ির বাইরে, ৩০ জন পুলিশের একটি বাহিনী নিযুক্ত করা হয়েছে। একজন সিনিয়র ইন্সপেক্টর, দুই অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার এবং স্পেশ্যাল ব্রাঞ্চের অফিসাররা রয়েছেন সেখানে।

২৯ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়েছে বিগ বস ১৩। এক সপ্তাহ যেতে না যেতেই নানারকম অভিযোগ উঠছে সলমান খানের এই শোয়ের বিরুদ্ধে। অভিযোগের তীব্রতা এতটাই যে দ্য কনফেডারেশন অব অল ইন্ডিয়া ট্রেডার্স (সিএআইটি) এই অনুষ্ঠান নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছে। অভিযোগ জানিয়ে লেখা হয়েছে, এই শো ঘিরে অশ্লীলতা এতটাই বেড়ে গিয়েছে যে তা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে বসে দেখা যাচ্ছে না। ভারতীয় ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতিতেও তা তীব্র প্রভাব পড়ছে। আমাদের মতো দেশে এই ঘটনা কখনই অনুমোদন যোগ্য নয়। ওই চিঠিতে আরও লেখা হয়েছে, টিআরপির লোভে নির্মাতার সবই ভুলতে বসেছেন। আমাদের মতো দেশে যে কোনও বাড়িতেই ছোট থেকে বড় সকলে একসঙ্গে বসে টিভি দেখেন। ‘বেড ফ্রেন্ড ফরএভার’ বলে তাঁরা যে পর্বের সম্প্রচার করছেন তা অত্যন্ত শোচনীয়। এখান থেকে ভারতীয় সমাজের প্রতি খুব ভুল বার্তা যাচ্ছে।

সম্প্রতি টেলি অভিনেত্রী রেশমি দেশাইকে নিয়েই জলঘোলা। হঠাৎ করেই তাঁকে একদিন বলা হয় সিদ্ধার্থ শুক্লার সঙ্গে একই বিছানায় শোওয়ার জন্য। সরাসরি এরকম প্রস্তাব আসার খানিকটা অস্বস্তিতে পড়ে যান অভিনেত্রী। তাঁর সেই মুহূর্ত ধরাও পড়ে টিভির পর্দায়। এই দেখেই নড়েচড়ে বসে সিএআইটি। ঘটনার পরই তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী প্রকাশ জাভরেদকরের কাছে একটি চিঠি পাঠানো হয়। চিঠিতে বিগ বস ১৩-এর এই এপিসোডের কথা উল্লেখ করা হয়। সম্পূর্ণ ভুল বার্তা যাচ্ছে দর্শকদের কাছে। সবরকম নৈতিকতার ঊর্ধ্বে এই শো। তাই অবিলম্বে বন্ধ করা হোক সলমন খানের বিগ বস ১৩।