চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ও সিলেট থান্ডারের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে আজ পর্দা উঠছে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) টি-২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের। জয় দিয়ে বিশেষ বঙ্গবন্ধু বিপিএলে যাত্রা শুরু করতে চায় দু‘দল।

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে শুরু হবে এবারের বিপিএলের প্রথম ম্যাচ। চট্টগ্রামের প্রথম ম্যাচে খেলবেন না দলের সেরা তারকা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। তার অধিনায়কত্ব ও অভিজ্ঞতা মিস করবে চট্টগ্রাম। তারপরও স্থানীয় ও বিদেশী খেলোয়াড়দের নিয়ে ভালো শুরুর ব্যাপারে আশাবাদি দলটি।

মাহমুদুল্লাহর পরিবর্তে চট্টগ্রামের অধিনায়কত্ব করবেন বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েস। অভিজ্ঞ এ ক্রিকেটারের অভাব পূরণ সম্ভব নয় উল্লেখ করে কায়েস বলেন, ‘মাহমুদুল্লাহকে ছাড়া একাদশ সাজানো কঠিন। আমরা তাকে দু’ম্যাচে মিস করবো। তার জায়গা কে খেলবেন, আমরা এখনো চুড়ান্ত করিনি, তবে এটি অনেক কঠিন। তবে একই সাথে, তার জায়গা যে খেলবে সে সুযোগ কাজে লাগানোর চেষ্টা করবে।’

তিনি আরো বরেন, ‘গেল মাসে কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সে ভারতের বিপক্ষে দিবা-রাত্রির টেস্টে হামস্ট্রিং ইনজুরিতে পড়েন মাহমুদুল্লাহ। ঐ ইনজুরি থেকে ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছেন তিনি। তারপরও আমরা স্থানীয় ও বিদেশী খেলোয়াড়দের নিয়ে জয় দিয়ে শুরুর ব্যাপারে আশাবাদি।’

দলকে উজ্জীবিত করার জন্য প্রথম ম্যাচেই জয় গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন ইমরুল, ‘ভালো শুরুর জন্য সবাই প্রথম ম্যাচে জিততে চায়। প্রথম ম্যাচের জয় থেকে আমরা আত্মবিশ্বাসী হতে পারি। ভালোভাবে মৌসুম শুরু করতে প্রথম ম্যাচে জয়টি আমাদের জন্য অনেক প্রয়োজনীয়। সকলেই সিলেটের বিপক্ষে জয়ের জন্য মুখিয়ে আছে।’

পাঁচ বছর কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের সাথে কাটানোর পর নতুন দল চট্টগ্রামের সাথে মানিয়ে নিতে কোন সমস্যা হবে না বলে জানান ইমরুল। তিনি বলেন, ‘সকল স্থানীয় খেলোয়াড় আমার কাছে পরিচিত। তাই এটি কোন সমস্যা নয়। একসাথে এক-দু‘টি ম্যাচ খেলার পরই বোঝাপড়াটা ভালো হয়ে যাবে। এক-দু’টি ম্যাচের পরই দলের মধ্যে বোঝাপড়া জমে উঠবে।’

সিলেট থান্ডারের কোচ দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক ওপেনার হার্সেল গিবস বলেন, দলে কোন বড় তারকা না থাকার পরও চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপক্ষে জ্বলে উঠতে প্রস্তুত তার দল। তিনি বলেন, ‘যদি আমরা নিজেদের সেরাটা খেলতে পারি তবে যেকোন দলের বিপক্ষে ভালো কিছু অর্জন করা সম্ভব। ম্যাচটি যে দুর্দান্ত হবে এতে কোন সন্দেহ নেই। আমরা আমাদের দক্ষতা নিয়েই বেশি ভাবছি। আমাদের ভালো মানের স্পিনার রয়েছে কিন্তু আমাদের টপ-অর্ডারে বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান নেই। আমরা এখানে পিছিয়ে রয়েছি। তবে আমাদের যা আছে তা দিয়েই এগিয়ে যেতে হবে। আমি মাত্র দু’দিন ছেলেদের সাথে কাজ করেছি। তারা ভালোভাবেই প্রস্তুত। বুধবারের ম্যাচের জন্য তারা মানসিকভাবেই প্রস্তুত রয়েছে। তারা যেকোন কিছু করতে প্রস্তুত এবং দলে কোন ইনজুরি নেই। আমি চাই, রাতে তাদের ভালো ঘুম হবে এবং সেরা ক্রিকেটই খেলবে।’