লক্ষ্মীপুরে জমির বিরোধ নিয়েই ঘরে ঢুকে সৌদি প্রবাসীর স্ত্রী মরিয়ম বেগম ও আট বছরের শিশু কন্যা সাদিয়া আক্তারকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে অঙ্গহানিসহ রক্তাক্ত করা হয়।

আটক প্রতিবেশী জাহিদ হোসেন জিজ্ঞাসাবাদে বিষয়টি স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় মরিয়মের ভাই আমির হোসেন বাদী হয়ে আজ রবিবার বিকেলে জাহিদকে প্রধান করে পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা দায়ের করেন।

জাহিদের বাবা আবু তাহেরের সঙ্গে প্রবাসী নবী উল্যার জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল।

এ ব্যাপারে চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জসিম উদ্দিন বলেন, ঘটনার পর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য জাহিদকে আটক করা হয়। জমির বিরোধের জের ধরে সে মা-মেয়েকে কোপানোর কথা স্বীকার করেছে।

তাকে মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার জন্য আদালতে পাঠানো হয়। তবে তার সঙ্গে আর কেউ সম্পৃক্ত ছিল কিনা এনিয়ে সে মুখ খোলেনি।

থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, সদর উপজেলার বশিকপুর ইউনিয়নের বালাইশপুর গ্রামে গতকাল শনিবার রাত ৯টার দিকে প্রবাসী নবী উল্যার ঘরে ঢুকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মরিয়ম ও তার মেয়ে সাদিয়াকে এলোপাতাড়ি কোপানো হয়।

এতে মরিয়মের ডান হাতের কবজি ও বাম হাতের চারটি আঙুল বিচ্ছিন্ন এবং মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে জখম হয়। শিশু সাদিয়ার মাথা ও ঘাড়ে গুরুতর জখম হয়েছে। তাদের প্রথমে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল আনা হয়।

পরে অবস্থার অবনতি হলে রাতেই মরিয়মকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে ও সাদিয়াকে ঢাকা নিউরোলোজী সার্জন হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

খবর পেয়ে রাতেই লক্ষ্মীপুর জেলা পুলিশ সুপার ড. এএইচএম কামরুজ্জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ সময় তিনি সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলেন।

0000

আজকের জনপ্রিয়

0000