সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এবার ভাইরাল হল রাতের রাস্তায় চালকদের জন্য পুলিশের চা-বিস্কুট খাওয়ানো। এই উদ্যোগ পুলিশের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে মূলত দুর্ধটনা ঠেকাতে। রাতের রাস্তায় চালকদের ঘুম কাটানোর জন্য এই অভিনব পন্থা নিয়েছে  চট্টগ্রাম-কাপ্তাই ও চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কের কিছু কর্তব্যরত পুলিশ।

চালকেরা যাতে ঘুম ঘুম চোখে গাড়ি না চালান, সে উদ্দেশ্যে চলকদের জন্য রাতে চা-বিস্কুটের ব্যবস্থা করছেন তারা। এমনকি চালকদের চোখে মুখে পানি দেওয়ার ব্যবস্থাও করছেন, পুলিশ সদস্যরা। এছাড়া রাতে গাড়ি থামিয়ে চালকদের সাথে কথাবার্তা ও গল্পও করছেন তারা। যতে করে চালকের চোখে ঘুম আসলেও যেন কেটে যায়।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের ব্যতিক্রমধর্মী এই সেবাটির নাম দিয়েছেন ‘রিফ্রেশমেন্ট কর্নার’। আর এই সেবাটি চালু করেন চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (রাউজান-রাঙ্গুনীয়া সার্কেল) মো. আনোয়ার হোসেন। বিগত ৩০ দিন ধরে এই সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তারা।

প্রথম দিকে চলকেরা মনে করেছিল, এটি হয়ত পুলিশের চাঁদাবাজির নতুন কৌশল। তাদেরকে হয়ত চা বিস্কুট খাইয়ে তাদের কাছ থেকে চাঁদা নেওয়া হবে। কিন্তু পরে চালকদের চুল ভাঙ্গে

গতকাল রাতে চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (রাউজান-রাঙ্গুনীয়া সার্কেল) মো. আনোয়ার হোসেন  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের এই সেবার একটি ভিডিও ধারণ করে স্ট্যাটাস দেন, এবং নিজেদের কর্মকান্ড তুলে ধরে জনগণকে উৎসাহিত করেন। ওই ভিডিওতে দেখা যায়, একজন পুলিশ সদস্য একজন ট্রাক ড্রাইভারকে চা-বিস্কুট ও পানি ভর্তি মগ তুলে দেন। আর চালকদের নানা পরমর্শ দেন এনং বলেন, তারা যেন মাঝে মাঝে রাতের বেলায় যাত্রা বিরতি নেন ও দোকানে চা বিস্কুট খান।

ওই পোস্টে আনোয়ার হোসেন আরও লিখেছেন, আমরা নাকি রাতের বেলা চা খাওয়ানোর নাম করে চালকদের কাছ থেকে ঘুষ নেই। তিনি বলেন এইসব অভিযোগ একেবারেই মিথ্যা না। ঘুষ হিসেবে টাকা না নিলেও মহামূল্যবান ঘুষ হিসেবে আমরা গ্রহণ করি চালক ভাইদের টুকরো টুকরো হাসি আর নিখাদ ভালোবাসা। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত শুধু এই ঘুষগুলোই খেয়ে যেতে চাই বারবার, বহুবার।

0000

আজকের জনপ্রিয়

0000