মধ্যমণি ছিলেন আগের ম্যাচেও। ব্রাজিলের পাঁচ গোলের তিনটিতে রেখেছিলেন অবদান। গোল না পাওয়ার হতাশাটা হ্যাটট্রিকেই কাটালেন নেইমার। তাঁর দ্যুতিতে দুইবার পিছিয়ে পড়েও পেরুকে ৪-২ ব্যবধানে হারিয়েছে ব্রাজিল। লাতিন অঞ্চলের বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে অপর ম্যাচে উরুগুয়েকে ৪-২ গোলে হারিয়েছে ইকুয়েডর। ২-২ গোলে ড্র হয়েছে চিলি-কলম্বিয়ার ম্যাচ।

গোলের মালা গেঁথে রেকর্ডও গড়েছেন নেইমার। ব্রাজিলের জার্সিতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৬৪ গোল এখন তাঁর। ছাড়িয়ে গেছেন রোনালদোর ৬২ গোলের কীর্তি। ৭৭ গোল নিয়ে সামনে শুধু পেলে। কিংবদন্তি রোনালদোর প্রতি অবশ্য শ্রদ্ধা জানাতে ভোলেননি নেইমার, ‘তোমার জন্য আমার সমস্ত শ্রদ্ধা ফেনোমেনন।’

ব্রাজিলিয়ান কোচ তিতেও রোনালদোর সঙ্গে তুলনা করতে চাইলেন না নেইমারের, ‘তুলনা হওয়াটাই উচিত নয়। নেইমারকে নিয়ে একটা কথা বলতে পারি, ও সুযোগ তৈরি করতে পারে, কাজেও লাগাতে পারে। প্রতিদিনই উন্নতি করছে, পরিণত হচ্ছে। ওর ড্রিবলে ভারাসাম্য হারিয়ে ফেলে ডিফেন্ডার। সব প্রজন্মে আলো ছড়ায় কেউ না কেউ। রোনালদো, রিভালদো, রোমারিও, বেবোতা প্রত্যেকে অসাধারণ। নেইমারও দুর্দান্ত।’

কোপা আমেরিকা জয়ের পথে গ্রুপ পর্বে ও ফাইনালে পেরুকে হারিয়েছিল ব্রাজিল।  লিমায় বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচটিতে অবশ্য আন্দ্রে কারিয়োর গোলে ষষ্ঠ মিনিটে এগিয়ে যায় পেরু। ২৮ মিনিটে নেইমারের পেনাল্টিতে সমতা ফেরায় ব্রাজিল।  ৩১ মিনিটে নেইমারের গোল বাতিল হয় আক্রমণ শুরুর সময় রিচার্লিসন অফসাইডে থাকায়।

৫৯ মিনিটে রেনাতো তাপিয়ার শট একজনের পায়ে লেগে জালে জড়ালে আবারও এগিয়ে যায় পেরু। ৬৪ মিনিটে নেইমারের কর্নার থেকে ফিরমিনোর গোলমুখে থাকা হেডার আলতো টোকায় জালে জড়ান রিচার্লিসন। নেইমারের আরেকটি পেনাল্টিতে ব্রাজিল ৩-২ ব্যবধানে এগিয়ে যায় ৮৩ মিনিটে। ডি বক্সে ফাউলের শিকার হন তিনিই।

এরপর রিচার্লিসনের মুখে আঘাত করে লাল কার্ড দেখেন কার্লোস জামব্রানো। লাল কার্ড দেখেন বেঞ্চের গোলরক্ষক কাসেদাও। ইনজুরি টাইমের চতুর্থ মিনিটে রিবেইরোর চিপ পোস্টে লেগে ফেরার সময় সেটা জালে জড়িয়ে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন নেইমার। এএফপি

0000

আজকের জনপ্রিয়

0000