আমাদের শরীরের জন্য প্রোটিন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। শরীর, মস্তিষ্ক এর সঠিক গঠনে প্রোটিন অত্যাবশকীয়। এছাড়া হরমোনের কার্যকারিতা ও বিপাক কাজেও প্রোটিনের ভূমিকা অপরিসীম। আমরা অনেকেই এই প্রোটিনের উৎস বলতে সাধারণ ডিমকেই মনে করি। কিন্তু আমরা এটা জানিনা যে, ডিম ছাড়াও এমন অনেক খাবার আছে, যাতে প্রোটিনে ভরপুর। এমনি কয়েকটি খাবার হলঃ (প্রতি ১০০ গ্রাম বিবেচনায়)

মসুরের ডালঃ

মসুরের ডাল প্রোটিনের প্রধান উৎস। কারণ এক ডালে ২৫ থেকে ৩০ গ্রাম প্রোটিন আছে। আর এতে চর্বির পরিমাণ খুবই কম।

সয়াবিন:

সয়াবিনে তেল ও প্রোটিনের পরিমাণ অনেক বেশি। এতে ৪০ গ্রাম প্রোটিন পাওয়া যায়। এছাড়া এতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিনও রয়েছে।

মটরশুটি:

মটরশুটিতে তেমন কোন ফ্যাট নেই তবে এর মধ্যে প্রচুর পরিমাণ প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, আয়রন ও বিভিন্ন ভিটামিন রয়েছে। মটরশুটিতে ১৫ গ্রামের মত প্রোটিন বিদ্যমান।

ছোলা:

ছোলা এমন একটি খাবার যার প্রোটিনের পরিমাণ মাছ কিংবা মাংসের সমান। ছোলাতে ২০ গ্রাম এর মত প্রোটিন রয়েছে। এছাড়া এতে শর্করা, ক্যালসিয়াম, খনিজ লবণ, ফসফরাস, ম্যাগনেশিয়াম, ভিটামিন ও সামান্য পরিমাণ ফ্যাট রয়েছে।

মিষ্টি কুমড়ার বিচি:

মিষ্টি কুমড়ার বিচিতে অতি উচ্চ মাত্রায় প্রোটিন রয়েছে। এর প্রোটিনের পরিমাণ ২০ গ্রাম। এছাড়া এতে ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস ও জিংক অনেক বেশি পরিমানে আছে।

বাদাম:

যেকোন বাদামই প্রোটিনের গুরত্বপূর্ণ উৎস। বাদামে ১০ গ্রামের মত প্রোটিন থাকে। এছাড়া এতে ফলিক এসিড, ভিটামিন ই, ফসফরাস প্রভৃতি আছে।

ফ্যাট ফ্রি দই:

ফ্যাট ফ্রি দই বা টক দইতে ফ্যাট অনেক কম থাকলেও এতে ২০ গ্রামের মত প্রোটিন থাকে।

আলমন্ড:

আলমন্ডেও অনেক প্রোটিন রয়েছে। এতে ১০ গ্রামের মত প্রোটিন রয়েছে। এছাড়া এতে রয়েছে ক্যালসিয়াম, ফাইবার, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, ফলিক এসিড, ভিটামিন ডি ও  ই , খনিজ। আর এতে চর্বির পরিমাণ অনেক কম থাকে।

পনির:

দুধের তৈরি খাটি পলির প্রোটিনের একটি অন্যতম উৎস। এতে প্রোটিনের পরিমাণ ২৯ গ্রাম।

সূত্র: টাইমস অফ ইন্ডিয়া

0000

আজকের জনপ্রিয়

0000