সরকারের জবাবদিহির অভাবেই সিলেটের এমসি কলেজে স্বামীর সামনে স্ত্রীর গণধর্ষণের শিকার হওয়ার ঘটনা ঘটছে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের (জি এম কাদের)।

তিনি বলেন, ‘দেশে ধর্ষণের ঘটনা এমনভাবে বেড়েছে, যাতে বিশ্বের সামনে আমাদের মাথা হেঁট হয়ে যাচ্ছে। স্বামীর সামনে স্ত্রী গণধর্ষণের এমন বীভত্স ঘটনার দায় কেউ এড়াতে পারে না। আমরা প্রতিটি ধর্ষণের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’ 

আজ শুক্রবার বিকেলে ঢাকার কাকরাইলে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয় চত্বরে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। 

জি এম কাদের ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) প্রকাশিত প্রতিবেদনের সমালোচনা করে বলেন, জাতীয় পার্টির কারণে সংসদে জবাবদিহি নিশ্চিত হয়নি—এমন অভিযোগ সঠিক নয়।

তিনি টিআইবিকে উদ্দেশ করে বলেন, তিন জোটের রূপরেখা অনুযায়ী পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ক্ষমতা হস্তান্তর করেন। তিন জোটের রূপরেখা অনুযায়ীই রাষ্ট্রপতি শাসিত সরকার ব্যবস্থা থেকে সংসদীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার নামে দেশে সংসদীয় স্বৈরতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

এমন সংসদীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, যাতে যারা সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে সেই দলের প্রধানই প্রধানমন্ত্রী হবেন। সরকারি দলের বাইরে কারো কিছু করার ক্ষমতা থাকে না। কারণ ৭০ ধারা অনুযায়ী দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে কোনো সংসদ সদস্য ভোট দিতে পারেন না। তাই বর্তমান সংসদীয় সরকার ব্যবস্থায় প্রকৃত গণতন্ত্র চর্চা সম্ভব নয়।

টিআইবির উদ্দেশে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান আরো বলেন, আওয়ামী লীগ এবং বিএনপিও প্রধান বিরোধী দল হিসেবে সংসদে ছিল। বর্তমান সংসদীয় পদ্ধতিতে তারাও সরকারের জবাবদিহি নিশ্চিত করতে পারেনি। আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সংসদ বর্জন করে সংসদকে অকার্যকর করতে চেয়েছে। 

এর আগে জাতীয় পার্টির নবনির্বাচিত সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান পার্টির চেয়ারম্যানকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। 

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য হাজি সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান খান, নবনিযুক্ত সাংগঠনিক সম্পাদক মিজান অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।