মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একটি প্রস্তাবকে আইন হিসেবে অনুমোদন দিয়েছেন যেটি হংকংয়ের গণতন্ত্রপন্থী বিক্ষোভকারীদের সমর্থন করে। চীনের অন্যান্য এলাকা থেকে হংকং যেন আলাদা স্বায়ত্বশাসন উপভোগ করে তা নিশ্চিত করতে হংকংয়ের মানবাধিকার ও গণতন্ত্র বিষয়ক আইনের বার্ষিক একটি পর্যালোচনা করা হবে।

ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন তিনি ‘শি জিনপিং, চীন ও সেদেশের মানুষের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ থেকে এই আইন পাস করেছেন।’ খবর-বিবিসি বাংলা।

গত কয়েক মাস ধরে চীনের ‘দমন-নিপীড়নের’ বিরুদ্ধে আন্দোলন করা হংকংয়ের সঙ্গে আমেরিকার ভালো বাণিজ্যিক সম্পর্ক অনেক দিনের।

আমেরিকার নতুন আইনের কারণে বেইজিং বাণিজ্যিকভাবে আরও চাপে পড়বে। মার্কিন মুলুকে এ ধরনের আইন পাস হলে ‘অভিযুক্ত’ দেশের ওপর বিভিন্ন ধরনের অবরোধ আরোপ করা হয়।

গণতন্ত্রের দাবিতে হংকংয়ে এখন চীনবিরোধী আন্দোলন চলছে। সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশটি রীতিমতো উত্তাল ছিল। এখনো প্রায় একই অবস্থা।

১৯৯৭ সালে ব্রিটিশদের কাছ থেকে হংকংয়ের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর আর কখনো এত ঝামেলায় পড়েনি চীন। বিক্ষোভ দমাতে কঠোর হওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েও সফল হয়নি তারা।

চীনের সঙ্গে আমেরিকার কূটনৈতিক সম্পর্ক সেই আদিকাল থেকে ‘খারাপ’। ট্রাম্পের আমলে অবস্থা আরও শোচনীয়। বাণিজ্যযুদ্ধে কেউ কাউকে ছাড়ছে না।