টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলায় নবম শ্রেণির তিন ছাত্রীকে অপহরণের পর গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। গতকাল রোববার উপজেলার সাতকুয়া বন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আজ সোমবার কয়েকজনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। তিন স্কুলছাত্রীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ।

অভিযুক্তদের শনাক্ত গ্রেপ্তার করতে পুলিশ চেষ্টা করছে বলে জানিয়েছেন ঘাটাইলের থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম।

মামলা ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গতকাল রোববার ঘাটাইলের একটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের দোয়া ও বিদায় অনুষ্ঠান ছিল। ওই বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির চার ছাত্রী বিদ্যালয়ে আসার পর বেড়াতে বের হয়। সেখানে তাদের সঙ্গে  হৃদয় ও শাহীন নামের দুই বন্ধু যোগ দেয়। পরে তারা ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাযোগে সাতকুয়া বনে যায়। এ সময় পাঁচ-সাতজন দুস্কৃতিকারী তাদের ঘিরে ফেলে হৃদয়, শাহীন ও রিকশাচালক আশিককে মারধর করে তিনজনকে গণধর্ষণ করে। এ সময় এক ছাত্রী ধষর্ণের হাত থেকে বেঁচে যায়। গতকাল দুপুর ২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত আটকে রেখে তিন ছাত্রীকে আবার গণধর্ষণ করে পালিয়ে যায় ধর্ষকরা।

এরপর ওই চার ছাত্রী তাদের একজনের নানার বাড়িতে আশ্রয় নেয়। মোবাইলে অভিভাবকদের বিষয়টি জানায়। পরে অভিভাবকরা থানায় জানালে পুলিশ চার ছাত্রীকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় আজ এক স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে অজ্ঞাত পাঁচ-সাতজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

ঘাটাইল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘তিন ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় থানায় শিশু অপহরণ ও ধর্ষণ মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। তিন স্কুলছাত্রীর ডাক্তারি পরীক্ষা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সদর উদ্দিন বলেন, ‘ওই তিন স্কুলছাত্রীর ডাক্তারি পরীক্ষা চলছে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর বিস্তারিত বলা যাবে।’