যৌতুক চাইলে এবার চাকরি হারাবেন সরকারি কর্মচারীরা

1 second read
0
0
41

পণ প্রথা বন্ধ করার উদ্দেশ্যে সরব হয়েছেন বিহারের মু্খ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার। তিনি বেশ কিছু দিন ধরেই পণ প্রথা ও বাল্য বিবাহের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন। বিভিন্ন সভায় সাধারণ মানুষকে এই দুই কুপ্রথার সম্পর্কে সচেতন করছেন তিনি এবং তাঁর সরকার। এবার সেই লক্ষ্যে আরও এক পদক্ষেপ করলেন নীতিশ কুমার। স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, বিহারের কোনও রাজ্য সরকারি কর্মচারী যদি বিয়ে পণের দাবি করেন তাহলে তাঁকে কাজ থেকে বরখাস্ত করা হবে পাকাপাকিভাবে। বিহারের সরকারি কর্মচারীদের শপথ বাক্য পাঠ করতে হয় যে তাঁরা নিজের বা ছেলের বিয়েতে পণের দাবি করবেন না এবং বাল্য বিবাহ দেবেন না। কিন্তু প্রায়ই দেখা যাচ্ছে কথায় এবং কাজে ফারাক থেকে যাচ্ছে। এই কারণেই এই কড়া পদক্ষেপের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নীতিশ কুমার সরকার। নীতিশ কুমার জানিয়েছেন, লোক সংবাদ নামের অনুষ্ঠানে এক মহিলার অনুরোধের ভিত্তিতেই এই ক্যাম্পেন শুরু করেন তিনি। টাইমস নাও-র থেকে পাওয়া তথ্যে জানা গিয়েছে বিহার নারী উন্নয়ন কর্পোরেশনের তরফে বিভিন্ন সরকারি দপ্তর এবং জেলা প্রশাসনকে নির্দেশিকা পাঠানো হবে যাতে প্রত্যেক জায়গায় এই নিয়ম কঠোরভাবে প্রয়োগ করা হয়। বিহারের উপ মুখ্যমন্ত্রী সুশীল কুমার মোদী জানিয়েছেন, রাজ্যে বাল্য বিবাহ বন্ধ করার জন্যে শুরু করা হবে একটি মোবাইল অ্যাপ ‘বন্ধন তোড়’। এই অ্যাপে থাকবে একটি SOS বোতাম। যদি কাউকে জোর করে মতের বিরুদ্ধে নাবালিকা অবস্থায় বিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়, তাহলে সেই সব মেয়েরা এই অ্যাপের সাহায্যে প্রশাসনের সাহায্য নিতে পারে।

সুত্রঃ এই সময়

মন্তব্য করুন

Comments are closed.