রান্নাঘরের সমস্ত সামগ্রীর মধ্যে সবচেয়ে সাধারণ দুটি মশলা হল আদা ও রসুন। বেশিরভাগ রান্নাতেই আমরা আদা, রসুন ব্যবহার করে থাকি। তবে, শুধুমাত্র রান্না সুস্বাদু করতেই নয়, পাশাপাশি, বিভিন্ন রোগের চিকিৎসার জন্য ওষুধ হিসেবেও ব্যবহৃত হয় এই দুটি মশলা। সাধারণত সর্দি এবং গলা ব্যথার জন্য সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় এগুলি।

তবে, আদা এবং রসুন যদি মধু এবং হালকা গরম জলের সাথে মিশিয়ে পান করা হয়, তাহলে কী উপকার পাওয়া যাবে? জেনে নিন এই আর্টিকেলটি পড়ে।

আদা, রসুন এবং মধু গরম জলের সাথে মিশিয়ে শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ এবং অন্যান্য বেশ কয়েকটি স্বাস্থ্য সমস্যার চিকিৎসার জন্য বিশ্বজুড়ে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্যগুলির কারণে এই মিশ্রণটি মানব স্বাস্থ্যের উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলে বলে দেখানো হয়েছে।

স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে গরম জলে আদা, রসুন এবং মধু

১) সংক্রমণ নিরাময়
গরম জলের সঙ্গে আদা, রসুন এবং মধুর মিশ্রণ, ক্ষতিকারক ব্যাকটিরিয়া এবং ভাইরাসজনিত সংক্রমণের চিকিৎসার জন্য উপকারি। আদার অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্যগুলি সাধারণ সর্দি, ফ্লু এবং বিভিন্ন সংক্রামক রোগের চিকিৎসায় সহায়তা করে।

রসুন হল আরও একটি শক্তিশালী মশলা যা, ব্যাকটিরিয়া, ছত্রাক এবং ভাইরাসজনিত সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে। মধু, অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল এবং অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল বৈশিষ্ট্যগুলির অধিকারি হিসেবে পরিচিত যা, সংক্রমণ রোধ করে।

২) ঠান্ডা লাগা এবং ফ্লু প্রতিরোধ করে
আদাতে বায়োঅ্যাকটিভ যৌগ রয়েছে, যা অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্যযুক্ত। এটি তীব্র গলা ব্যাথা হ্রাস করতে সহায়তা করে এবং এটি নির্দিষ্ট কিছু অণুজীবকেও বাধা দেয়।

রসুন এবং মধু-র অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল এবং অ্যান্টিভাইরাল বৈশিষ্ট্যের কারণে সাধারণ ঠান্ডা লাগা থেকে মুক্তি দেয়।

৩) হজমের সমস্যা থেকে মুক্তি দেয়
আদা, রসুন এবং মধুর সংমিশ্রণ পেটের বদহজম, অম্বল, পেটে ব্যথা, ফোলাভাব এবং গ্যাস সহ সমস্ত হজম সংক্রান্ত সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে। খাবারের আগে এই মিশ্রণটি পান করলে, পেটের সমস্যাগুলি সমাধানে সহায়তা করবে।

৪) হার্ট ভাল রাখে
আদা রক্তচাপ হ্রাস করতে পারে বলে জানা গেছে, যা হৃদরোগের একটি বড় ঝুঁকি। গবেষণায় আরও প্রমাণিত হয়েছে যে, রসুন এবং মধু উভয়ই উচ্চ রক্তচাপের মাত্রা হ্রাস করার ক্ষমতা রাখে।

৫) হাঁপানির লক্ষণগুলি হ্রাস করে
গবেষণায় দেখা গেছে যে, আদা হাঁপানির লক্ষণগুলি কমাতে সহায়তা করে। রসুন এবং মধুতেও অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য আছে, তাই এগুলিও হাঁপানির লক্ষণগুলি হ্রাস করতে সহায়তা করে।

৬) রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়
আদা, রসুন এবং মধু গরম জলে মিশিয়ে খাওয়ার আরেকটি সুবিধা হল, এটি প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতে সহায়তা করে। এতে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি, অ্যান্টিভাইরাল এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্যগুলি আছে, যা অক্সিডেটিভ স্ট্রেসের বিরুদ্ধে লড়াই করে এবং শরীরকে সুরক্ষিত রাখে।

৭) ক্যান্সার প্রতিরোধ করে
মধু ফ্ল্যাভোনয়েড সমৃদ্ধ যা, ক্যান্সার বিরোধী বৈশিষ্ট্যযুক্ত বলে জানা যায়। এছাড়া, গবেষণাগুলি, ক্যান্সার প্রতিরোধ ও চিকিৎসায় আদা ও রসুনের সম্ভাব্য প্রভাবগুলিও দেখিয়েছে।

গরম জলের সঙ্গে আদা, রসুন এবং মধু, কীভাবে প্রস্তুত করবেন

উপকরণ
ক) রসুনের কোয়া ২০টি

খ) আদার টুকরো ২টি

গ) ২০০ এম. এল জল

ঘ) ৪ টেবিল চামচ মধু

পদ্ধতি
ক) রসুনের কোয়া পিষে নিন এবং আদা গ্রেট করে নিন।

খ) অল্প গরম জলে আদা রসুন এবং মধু মেশান।

গ) মিশ্রণটি ব্লেন্ডারে দিয়ে ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন।

ঘ) এরপর, গ্লাসে ঢেলে পান করুন।