প্রায় এক মাসের লকডাউনের পরেও ভারতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৪ হাজার ৫০৬ জন। ইতোমধ্যে ৫ হাজার ৬২জন রোগীকে চিকিৎসার পর সুস্থ হয়ে যাওয়ায় হাসপাতাল থেকে ছাড়া হয়েছে। পাশাপাশি করোনায় আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ৭৭৫ জন রোগীর। 

আজ শনিবার সকালে ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এই তথ্য জানিয়েছে।

দীর্ঘ প্রায় এক মাসের লকডাউনের পরেও আক্রান্তের সংখ্যায় এই রেকর্ড বৃদ্ধি স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন তুলছে লকডাউনের কার্যকারিতা নিয়ে।

পরিসংখ্যানে প্রকাশ, শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত গত চব্বিশ ঘণ্টায় সারা ভারতে ১৬৮৪ জন নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছে। 

তবে ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, অন্যান্য দেশের থেকে ভারতের অবস্থা অনেকটাই ভালো। করোনার সুস্থতার হার ২০.৫৭ শতাংশ। আগে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দ্বিগুণ হচ্ছিল মাত্র ৩ দিনে, এখন সেটা বেড়ে হয়েছে ১০ দিন৷ লকডাউনের কার্যকারিতাতেই এই সাফল্য৷ ঠিক সময়ে লকডাউন শুরু না করলে এখন ভারতে আক্রান্তের সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়ে যেত বলে দাবি তাদের।

ভারতে করোনা সংক্রমণের শীর্ষে এখন মহারাষ্ট্র। সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ৬,৪২৭। শুধু মুম্বাইয়েই সংক্রমিত ৪২০৫ জন।

আক্রান্তদের মধ্যে অন্তত ২০০ জন ধারাভির বাসিন্দা। ঘিঞ্জি এই বস্তিতে সব মিলিয়ে প্রায় দশ লাখ লোকের বাস। সেখানে একবার সংক্রমণ শুরু হলে তা রোখা কার্যত অসম্ভব বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। 

তবে ভারতে আজ শনিবার থেকে শর্তসাপেক্ষে খুলছে বিভিন্ন দোকান। অবশ্য সংক্রমিত এলাকায় খুলবে না দোকান। শপিং মল আগের মতোই থাকবে বন্ধ। সূত্র : এই সময়।