ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলির মতে, করোনা যে শুধু মানুষের ক্ষতিই করছে, তা নয়। চাইলে এই মহামারীর কাছ থেকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কিছু শিক্ষাও নেয়া যায়।

করোনা মহামারীর এ সময়ে জীবন-যাপনের দৃষ্টিভঙ্গিই পালটে গেছে কোহলির। করোনা থেকে বাঁচতে স্ত্রী আনুশকা শর্মার সঙ্গে এখন ঘরেই রয়েছেন তিনি।

এই দম্পতি ঘরে কীভাবে সময় কাটাচ্ছেন– মাঝে মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এসে তার একটা ধারণা দিয়ে যান কোহলি। হাতে তাই এখন অখণ্ড অবসর। তাই এই অবসর সময়টাই নিজেকে নিয়ে, সমাজকে নিয়ে নতুন করে ভাবার একটা অবকাশ দিয়েছে বিশ্বের অন্যতম সেরা এ ব্যাটসম্যানকে।

কোহলির মতে, করোনা মহামারী মানুষকে আরও বিনয়ী হতে শিখিয়েছে। শিখিয়েছে অন্যের প্রতি দরদী হতে। এই সংকটেও ইতিবাচক দিক খুঁজে পেয়েছি আমি। সমাজের অংশ হিসেবে এখন আমরা আগের চেয়ে আরও সহানুভূতিশীল।

তিনি বলেন, এই যুদ্ধে সামনে থেকে লড়াই করা যোদ্ধাদের আমরা আরও বেশি করে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। তাদের অবদান মন খুলে স্বীকার করছি। সেটা পুলিশের লোক হোক, চিকিৎসক কিংবা সেবিকা হোক।

নিজের খুশিকেই প্রাধান্য দেয়ার কথা বললেন কোহলি। তিনি বলেন, জীবন অনেক অননুমেয়। তাই নিজেকে খুশি রাখার কাজ করুন। সব সময় তুলনায় যাবেন না। যা আছে তা নিয়ে খুশি থাকুন।