বাংলাদেশের জনপ্রিয় অ’ভিনেতা এজাজুল হক এজাজ। দর্শকরা তাকে ডা. এজাজ হিসেবেই চিনেন। করো’না ভাই’রাসের এ সময়ে কিছু পরাম’র্শ দিলেন তিনি।

বললেন, করো’নার প্রধান লক্ষণগুলো অনেকেই বিভিন্ন প্রচার মাধ্যমে দেখেছেন। এমন উপসর্গ দিলে যেসব জায়গায় করো’নাভাই’রাসের পরীক্ষা হচ্ছে সেখানের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

তারা যদি উপসর্গ দেখে মনে করে পরীক্ষা করা দরকার তাহলে করবে। আর যত বেশি পরীক্ষা হবে তত বেশি মঙ্গল।

এখন তো পরীক্ষা করা সহ’জ হয়ে গেছে, জে’লা পর্যায় থেকে বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতেও করো’না পরীক্ষা শুরু হয়েছে। তাই কঠিন উপসর্গ দেখা দিলেই পরীক্ষা করাতে হবে বলেই জানালেন তিনি।

১৯৮৪ সালে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করার পর পিজি ( বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়) থেকে ডিএনএম (পোস্ট গ্রাজুয়েশন-ডিপ্লোমা ইন নিউক্লিয়ার মেডিসিন) করেছেন। এর আগে দেশের নানা জায়গায় চিকিৎসক হিসেবে চাকরি করেছেন। সর্বশেষ এজাজুল ইস’লাম ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে নিউক্লিয়ার মেডিসিন বিভাগে চেয়ারম্যান হিসেবে যোগদান করেন। তবে এখন অবসরে তিনি। গত জানুয়ারি থেকে তিনি অবসরে রয়েছেন বলে জানালেন।

অ’ভিনেতা এজাজ বলেন, ‘আমাদের দেশের যা অবস্থা তাতে করে আমাদের সতর্ক না হয়ে উপায় নেই। সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে কেন যে পারি না, আম’রা নিজের চোখে বিপদ না দেখলে সতর্ক হতে চাই না। এখন দেশের যে অবস্থা এখন সতর্ক না হলে আম’রা ভ’য়াবহ খা’রাপ অবস্থার দিকে যাবো। আম’রা পালিয়ে বাঁচতে চাইছি। আম’রা ইতালি, ফ্রান্স থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে এসে বাঁচতে চাইছি, নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা থেকে পালিয়ে গ্রামে গিয়ে বাঁচতে চাইছি। এটা আসলে বাঁ’চা নয়, আপনি নিজেকে মৃ’ত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছেন। একইসাথে আপনার আশেপাশের মানুষেরাও মৃ’ত্যুর দিকে চলে আসছে আপনার কারণে। এটাকে বাঁ’চা বলে না, নিজেই নিজেকে মৃ’ত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছেন। নিজের জায়গা থেকে বাঁচুন।’