চুলের সৌন্দর্য বাড়াতে অনে’কেই রং করে থাকেন। এজন্য পার্লারের উপরই ভরসা রাখেন নি’শ্চয়! তবে পার্লারে ব্যবহৃত কেমিকেলযু’ক্ত এসব পণ্য আপনার চুলের ক্ষতির কা’রণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। 

এতে দেখা যায়, কিছুদিন প’রই চুল রুক্ষ হয়ে পড়ে যাচ্ছে। এতো সমস্যা জেনেও অনেকে আবা’র রং করার শখও ভুলতে পারছেন না! এক্ষে’ত্রে চাইলেই কিন্ত আপনি পছন্দমতো চুলে রং করে নিতে পার’বেন বাড়িতেই। ঘরে থাকা চা কফিতেই বদলে ফেলুন আপনা’র চুলের রং। কীভাবে কী করবে’ন? জেনে নিন প’দ্ধতি- 

> এজন্য আপ’নার চুলের দৈর্ঘ্য বুঝে কিছু তাজা মেহেদি পাতা নিয়ে নিন। মেহে’দির গুঁড়াও ব্যবহার করতে পারবেন। হাঁড়িতে পানি দি’য়ে তাতে মেহেদি পাতা, চায়ের পাতা আর কিছুটা কফি জ্বা’ল করুন। পানির রং বদলে কমে এলে না’মিয়ে ঠাণ্ডা করে নিন। এবার এটি আপনার চু’লে লাগিয়ে রাখুন ২০ মিনিট। এরপর শ্যা’ম্পু করে ফেলুন। সপ্তাহে তিন’বার ব্যবহার করুন। এতে আপনার চুলে বা’দামি আভা দেবে।

> মেহেদি পাতা পেস্ট করে বা মেহে’দির গুঁড়ার সঙ্গে এই পানি মিশিয়ে প্যাক বানিয়েও চুলে লা’গাতে পারেন। এতে লালচে বাদামি রং ধা’রণ করবে আপনার চুল। এই প্যাক লাগিয়ে দুই ঘ’ণ্টা রেখে শ্যাম্পু করে নিন।

> আবার চুল লা’ল রং করতে চাইলে বিট বা গাজরের রস ব্যব’হার করতে পারেন। নারকেল তেলের সঙ্গে বি’টের রস মিশিয়েও চুলে লাগাতে পারেন। একটু হালকা ভিন্ন রং পেতে ব্যব’হার করতে পারেন গাজরের রস। প্রথমে গাজর কু’চি করে কেটে নিন। এরপর পেস্ট বানিয়ে না’রকেল তেল বা অলিভ তেলের সঙ্গে মিশিয়ে মাথায় লা’গিয়ে রাখুন দুই ঘণ্টা। তারপর চুলে শ্যা’ম্পু করে নিন।

মনে রাখবেন- 

> ঘরোয়া পদ্ধতিতে চুল রং ক’রলে চুলে বেশি হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহার করবেন না।  

>চুল ধোয়ার ক্ষেত্রে অতিরিক্ত কেমিক্যাল যুক্ত শ্যাম্পু ব্য’বহার করা যাবে না। 

>গরম পানি চুলে ব্য’বহার করা যাবে না।