করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকিতে আছেন ডায়াবেটিস রোগীরাও। আবার তাদের খাবার খেতে হয় একদম সময়মতো, মেপে মেপে। তাই এই সময়ে ডায়াবেটিস রোগীর খাবারে যেন কোনোরকম হেলাফেলা না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। জেনে নিন সময়ে ডায়াবেটিস রোগীরা কী খাবেন-

ডায়াবেটিকদের খাদ্যতালিকা এমন হওয়া উচিত, যাতে তাদের রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হয়। তার জন্য তাদের খাবারে হোল গ্রেন বা যে ধরনের দানাশস্য কোনো প্রসেসিংয়ের মধ্যে দিয়ে যায়নি, তা রাখার পরামর্শ দেয়া হয়। ডায়াবেটিকদের ভাতের বদলে রুটি খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

যে সাদা চালের ভাতটা আমরা খাই, সেটি রিফাইন্ড কার্ব। রুটির আটায় ভুষি থাকে, ফলে সেটা ভাঙতে শরীরের বেশি সময় লাগে। ক্যালোরির দিক থেকে দেখলে ভাত আর রুটির মধ্যে খুব বেশি পার্থক্য নেই। একান্তই যদি রুটি খাওয়া সম্ভব না হয়, তা হলে ভাতই খান, তবে পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। বদলে ডাল বা সবজি বেশি করে খাওয়া অভ্যাস করুন।

সবজি বাজারে মিলছে, দামও এখন পর্যন্ত খুব বেশি না। তাই যতটা সম্ভব কিনে রাখুন। ধুয়ে ছোটো ছোটো টুকরোয় কেটে এয়ারটাইট পাত্রে ভরে ফ্রোজেন সবজির মতোই রেখে দিন ফ্রিজে, বেশ কিছুদিন ব্যবহার করতে পারবেন।

এই সময়ে নানা ফল পাওয়া যা, সেগুলোও খেতে পারেন, তবে মনে রাখতে হবে যে কার্বোহাইড্রেটের দিক থেকে বিচার করলে ফলে তার মাত্রা বেশি, সবজিতে কম। তাই বেশি করে সবজি খেতে পারেন।

প্রোটিনের দিক থেকে ভরসা রাখতে পারেন যেকোনো ডাল, ছোলা, বাদাম, দুধ, ছানা, ডিম ও মাছের উপর। নিরামিষ খেলে কোনো সমস্যা নেই। আলুও খেতে পারেন একান্ত উপায় না থাকলে। তবে কার্বোহাইড্রেটের মাত্রা যেন না মাত্রা ছাড়ায় সে ব্যাপারে সতর্ক থাকুন। আর রান্নায় তেল-মশলা-লবণ-চিনি সবের ব্যবহারেই নিয়ন্ত্রণ রাখা উচিত।

সবচেয়ে জরুরি বিষয় হচ্ছে, শরীর সচল রাখুন। হাঁটাচলা করুন নিয়ম করে। বাড়ির ছাদে ব্যাডমিন্টন খেলা বা সিঁড়ি দিয়ে ওঠানামাও চলতে পারে।