বরিশালের উজিরপুরে চাচাতো চাচার ধর্ষণে পঞ্চম শ্রেণির শিশু শিক্ষার্থী ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে গোটা এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি ও নিন্দার ঝড় বইছে। ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা হওয়া ওই শিশুটির পরিবারের দাবি, একই বাড়ির দূরসম্পর্কের চাচা ভয়-ভীতি আর নানা প্রলোভন দেখিয়ে ওই শিশু শিক্ষার্থীকে একাধিকবার ধর্ষণ করায় সে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। তবে লোকলজ্জায় বিষয়টি তারা থানা পুলিশ পর্যন্ত না নিয়ে নিজেরা মীমাংসা করেছেন বলে জানায়।

তবে এলাকাবাসী বলছে, এমন ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত। তাদের দাবি সঠিকভাবে তদন্তপূর্বক এ ঘটনায় অভিযুক্তকে আইনের মাধ্যমে যেন কঠোর শাস্তি দেওয়া হয়।

স্থানীয় ও ভুক্তভোগী শিশুর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বামরাইল ইউনিয়নের মুগাকাঠী গ্রামের করিম খানের ছেলে আমিনুল খানের (২২) বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। ভুক্তভোগী শিশুটি একই বাড়ির আমিনুল খানের চাচাতো ভাইয়ের মেয়ে। সম্প্রতি ওই শিশুর শারীরিক অবস্থা দেখে পরিবারের সন্দেহ হলে তার অন্তঃসত্ত্বা বিষয়টি ধরা পড়ে। এরপর ওই শিশু শিক্ষার্থী তার পরিবারসহ স্থানীয়দের কাছে পুরো ঘটনা জানায়।

ভুক্তভোগী শিশুর মা বলেন, অভিযুক্ত আমিনুল সম্পর্কে তার চাচাতো দেবর। তাই থানায় মামলা না দিয়ে বিষয়টি উভয় পরিবার নিজেদের মধ্যে মীমাংসা করেছে।

তবে কি মীমাংসা হয়েছে সে সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

উজিরপুর মডেল থানার ওসি মো. জিয়াউল আহসান বলেন, এ ধরনের কোনো ঘটনার অভিযোগ এখনো পাইনি। ওই শিশুর পরিবার থেকে অভিযোগ দেওয়া হলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।