বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। লাশের সারি দীর্ঘ হতে হতে দেশটি মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে। মৃত্যুর সংখ্যার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা।

করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও ফ্লোরিডা ও ক্যালিফোর্নিয়া রাজ্যের ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে দাবদাহ। তাই প্রচণ্ড গরম থেকে রক্ষা পেতে লকডাউন ভেঙে দেশটির সমুদ্রসৈকতে ভিড় করতে দেখা গেছে মার্কিনিদের।

রোববার সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

খবরে বলা হয়, ক্যালিফোর্নিয়ার নিউপোর্ট এবং হাংটন সমুদ্রসৈকতে শুক্র ও শনিবার উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে। তবে যারা করোনা প্রকোপের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব মেনে সমুদ্রসৈকতে এসেছেন, তাদের সমর্থন করেছেন ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্নর গ্যাভিন নিউসম।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া, ওকলাহোমা এবং অন্যান্য আরও কিছু রাজ্যে লকডাউন শিথিল করে খুলে দেয়া হয়েছে দোকানপাট। এই পরিস্থিতিতে যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে দিয়ে বলছেন, মানুষের সামাজিক দূরত্ব কমে গেলে আরেকটি ধাপে করোনাভাইরাসের প্রকোপ দেখা দিতে পারে যুক্তরাষ্ট্রের ওই সব রাজ্যে।

করোনায় প্রাণহানি ও আক্রান্তের পরিসংখ্যান রাখা আন্তর্জাতিক সংস্থা ওয়ার্ল্ডওমিটারসের তথ্যানুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৯ লাখ ৬০ হাজার ৬৫১ জন।

অন্যদিকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৫৪ হাজার ২৫৬ জনের। ইতিমধ্যে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১ লাখ ১৮ হাজার ১৬২ জন। তবে ১৫ হাজার ১১০ জনের অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক।

যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ৯ লাখ ৩৮ হাজার ৭২। অন্যদিকে মারা গেছে ৫৩ হাজার ৭৫১ জন।

এখন পর্যন্ত বিশ্বের ২১০ দেশ ও অঞ্চলে করোনার প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে। তবে করোনায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রেই। দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রথম দিকে বৈশ্বিক এই মহামারীকে গুরুত্ব দেননি।

দেশটির সব অঙ্গরাজ্যেই করোনা ছড়িয়ে পড়েছে। তবে করোনায় সবচেয়ে বেশি বিপর্যস্ত নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্য। সেখানে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৮২ হাজার ১৪৩। মারা গেছেন অন্তত ২২ হাজার ৯ জন।

এর পরেই রয়েছে নিউজার্সি। সেখানে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৫ হাজার ৪৯৮ জন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৫ হাজার ৯১৪ জন। অপরদিকে ম্যাসাচুসেটস অঙ্গরাজ্যে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৫৩ হাজার ৩৪৮ জন। মারা গেছেন ২ হাজার ৭৩০ জন। এদিকে বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৩ হাজার ২৮৯ জন। আর আক্রান্ত হয়েছেন ২৯ লাখ ২১ হাজার ৪৩৯ জন। ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছে ৮ লাখ ৩৬ হাজার ৯৪১ জন।