বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে ভারতের মৃত্যু হয়েছে ৮২৬ জনের। এছাড়াও আক্রান্ত হয়েছে ২৬ হাজার ৯৭১ জন। করোনা মহামারীর মাঝে ভারতে ছড়িয়েছে নতুন ভাইরাস আতঙ্ক। রহস্যজনক এই ভাইরাসে এরইমধ্য ১৯০০ শূকর মারা গেছে, তাই শূকরের মাংস কেনা-বেচা বন্ধ করেছে আসাম সরকার। 

আসামের অ্যানিম্যাল হাসব্যান্ডারি, ভেটিরিনারি এণ্ড এগ্রিকালচার মন্ত্রী অতুল বোরা জানিয়েছেন, ‘ভাইরাস সংক্রমণে বহু শূকরের মৃত্যু হয়েছে এবং মোট ১৯৬৪টি মৃত্যুর ঘটনা সামনে এসেছে। ছয় জেলায় এই ঘটনা দেখা গেছে।’ তিনি আরও বলেছেন, ‘আমাদের ভেটিরিনারি ডাক্তাররা মৃত শূকরদের নমুনা সংগ্রহ করেছেন এবং তা ভুপালের ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অফ হাই সিকিউরিটি অ্যানিম্যাল ডিসিজেজ ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হয়েছে। এখন আমরা রিপোর্টের অপেক্ষা করছি। কিন্তু এক্ষুনি আমাদের সরকার শূকরের মাংস কেনা-বেচা ও বণ্টন বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

আসামের মন্ত্রী এই প্রসঙ্গে আরও বলেছেন, ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলোকে কনটেইনমেন্ট জোন হিসেবে চিহ্নিত করেছে রাজ্য। খতিয়ে দেখা হচ্ছে ঠিক কতটা ভাইরাস এখনো পর্যন্ত ছড়িয়েছে। যে ছয় জেলা মূলত ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের মধ্যে রয়েছে বিশ্বনাথ, ধীমাজি, ডিব্রুগড়, লাখিমপুর, সিভাসাগর এবং জোরহাট।

আসামের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোওয়াল শনিবার উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করেছেন। সেখানে ছিলেন অ্যানিম্যাল হাসব্যান্ডারি, ভেটিরিনারি দফতরের বিজ্ঞানিরাও। বৈঠকটি হয় গুয়াহাটির ব্রহ্মপুত্র গেস্ট হাউসে। এই বিষয়ে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শুধু তাই নয়, এই বিষয়ে কিভাবে মুক্তি পাওয়া যায় সে বিষয়টিও দেখতে বলা হয়েছে।

তবে মূলত যেসব কৃষকরা শূকর পালনের সঙ্গে যুক্ত তাদের দিকে তাকিয়ে এই বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থার নির্দেশ দিয়েছে আসাম সরকার। সূত্র- কলকাতা ২৪।