করোনার এই দুঃসময়ের মধ্যেই এক ভয়ানক খবরে কেঁপে উঠল সকলে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি বৃদ্ধদের থাকার ভবনে (বৃদ্ধাশ্রম) করোনা কালো থাবা বসিয়েছে। সেই বৃদ্ধাশ্রমে করোনা আক্রান্ত হয়ে ৭০ জন বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ম্যাসাচুসেটসের একটি বৃদ্ধাশ্রমে। স্টেট ও ফেডারাল কর্মকর্তারা এই মুহূর্তে তদন্তে করছেন ঠিক কিভাবে এই মারণ রোগ ঢুকেছে বৃদ্ধাশ্রমে।

হলিওক সোলজার্স নামের বৃদ্ধাশ্রমে এই করুণ ঘটনা ঘটে। অ্যাডওয়ার্ড ল্যাপিন্তে নামক এক ব্যক্তির শ্বশুর থাকেন ওই বৃদ্ধাশ্রমে। তিনি জানিয়েছেন, পরিস্থিতি ভয়ানক। এই বৃদ্ধাশ্রমে থাকা আরো মানুষ মারা যেতে পারেন। ওই বৃদ্ধাশ্রমের আরো ৮২ জন আবাসিক বৃদ্ধ ও ৮১ জন কর্মী সকলেই করোনা পজিটিভ। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর খবর প্রতিদিনই আসছে ওই বৃদ্ধাশ্রম থেকে।

এই হোমে নার্সের দায়িত্ব পালনরত জোয়ান মিলার জানিয়েছেন, কর্মী সংখ্যা কম থাকায় বিষয়টা আগুনের মতো গতিত ছড়িয়ে পড়েছে। এতটাই কর্মী সঙ্কট ছিল যে এক ইউনিটের কর্মীরা অন্য ইউনিটে যেতে বাধ্য হচ্ছিলেন। ফলে ভাইরাসের সংক্রমণ ভয়ানক আকার নিয়ে নেয়। একটা সময় একটা ইউনিট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল সেখানে কোনো কর্মী না থাকায়। প্রবীণদের সেখান থেকে সরিয়ে আরো কাছাকাছি করে বিল্ডিংয়ের অন্য প্রান্তে রাখা হয়েছিল। 

এক জন বৃদ্ধ আরেকজনের ওপরে থাকতেন। তারা জানিয়েছেন কে পজিটিভ আ কে পজিটিভ নয় তা জানা ছিল না। তারা এক গ্রুপে থাকতেন তার ফলে পরিস্থিতি আরো ভয়ানক হয়ে ওঠে। এরপরেই ঘটনা সবার সামনে আসে।

এই বৃদ্ধাশ্রমে দুইশ ৩০ জন বৃদ্ধ বাস করছিলেন। মার্চ মাসের সোমবার সেখানে মাত্র একশ ছয় জন ছিলেন। তাদের বেশিরভাগের শরীরেই করোনাভাইরাস মৃদু ও মধ্যম মানের সংক্রমণ দেখাচ্ছিল। কারোর জ্বর ছিল কারোর কাশি যেটা অনেকের সারছিল বলে মনে হয় আবার অতি বৃদ্ধদের ক্ষেত্রে সেটা নিউমোনিয়ায় পরিণত হয়েছিল।

সূত্র: ফক্স নিউজ।