কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে সৌদিফেরত প্রবাসীকে হত্যা করে তাঁর দুই ভাই ও ভাতিজাকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে প্রতিপক্ষ। আজ মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার জিনারি ইউনিয়নের হাজিপুর গ্রামে এ নৃশংস ঘটনা ঘটে। নিহত প্রবাসীর নাম তাইজুল ইসলাম (৩৫)। তিনি ইউনিয়নের গড়মাছুয়া গ্রামের মাহতাব উদ্দিনের ছেলে। 

গুরুতর আহতরা হলেন- নিহতের ভাই আমিনুল ইসলাম (৪৫) ও তাঁর ছেলে শামীম (২৫) ও জালাল উদ্দিন। জালাল নিহতের চাচাতো ভাই। আহতদের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। তাদের ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
 
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, গড়মেছুয়া গ্রামের আমিনুলের ছেলে শামীম পাশের মেছেড়া গ্রামের আতকাপাড়া এলাকার মফিজ উদ্দিনের ছেলে পারভেজের (৪০) সঙ্গে রাজমিস্ত্রির সহকারী হিসেবে কাজ করতেন।

রাজমিস্ত্রি পারভেজের কাছে তাঁর মজুরি বাবদ ৩৫০ টাকা পাওনা ছিল। এই পাওনা টাকা চাওয়ায় মঙ্গলবার সকালে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। বিকেলে হাজিপুর বাজারে শামীমকে একা পেয়ে পারভেজ ও তাঁর লোকজন এক বাড়িতে তাকে আটকে রেখে নির্যাতন মারপিট করে।

এমন খবর পেয়ে শামীমের চাচা তাইজুল ও তার দুই ভাই শামীমকে উদ্ধার করতে সেখানে যান। তখন রাজমিস্ত্রি পারভেজ ও তার লোকজন শামীমের স্বজনদের ওপর ধারাল অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। এতে সবাই গুরুতর আহত হয়। মুমূর্ষু অবস্থায় তাইজুলসহ আহত অন্যদের স্থানীয় লোকজন হোসেনপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসক তাইজুলকে মৃত ঘোষণা করেন।

হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. আদনান আখতার জানায়, নিহতের বুকে ও গলায় ধারাল অস্ত্রের আঘাতসহ একাধিক স্থানে গভীর ক্ষত ছিল।

স্থানীয়রা জানিয়েছে, পারভেজসহ ঘটনার সঙ্গে জড়িতরা পালিয়ে গেছে। এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। মঙ্গলবার রাত ১১টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে ছিল।

হোসেনপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান জানান, হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের ধরতে পুলিশ বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালাচ্ছে। একই সঙ্গে মামলার প্রস্তুতিও চলছে। আর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হচ্ছে। 

0000

অবশ্যই পড়ুন

0000