করোনা যুদ্ধে সামিল হয়েছেন ভারতের ফার্স্ট লেডি তথা রাষ্ট্রপতির স্ত্রী সবিতা কোবিন্দ। সেলাইয়ের মেশিন হাতে নিয়ে তিনি এবার নিজের হাতে মাস্ক তৈরি করতে শুরু করেছেন।

তার তৈরি মাস্কগুলি যাবে দিল্লির পরিযায়ী শ্রমিকদের কাছে। সেখানে বিভিন্ন হোমে আশ্রয় নেওয়া মানুষদের মধ্যে এই মাস্ক বিলি করা হবে। দিল্লির আরবান শেল্টার ইম্প্রুভমেন্ট বোর্ড এমন পদক্ষেপ নিয়েছে। আর এই উদ্যোগে সাড়া দিয়েই দিল্লির শেল্টার হোমে আটকে থাকা মানুষদের জন্য নিজের হাতে সেলাই মেশিনে বসে মাস্ক তৈরি করছেন ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবন্দের স্ত্রী তথা দেশটির ফাস্ট লেডি সবিতা কোবিন্দ।

সবিতা কোবিন্দ মাস্ক তৈরির সময় নিজে একটি লাল রঙের মাস্ক পরে নেন। নিজের হাতে মাস্ক সেলাই করে সবিতা কোবিন্দ বার্তা দিয়েছেন, এই ভয়ঙ্কর সময়ে যে কোনও মানুষ করোনা মোকাবিলায় সাহায্যের হাত বাড়াতে পারেন।

করোনার জেরে ভারতে ধরাশায়ী অর্থনীতির উদ্বেগ কাজ করছে সকলের মধ্যে। দেশটির রাষ্ট্রপতি থেকে প্রধানমন্ত্রী এবং সাংসদরা নিজেদের বেতন হ্রাস করার পথে হেঁটেছেন। এবার সেই যুদ্ধে সামিল হয়ে নিজের হাতে মাস্ক বানাতে শুরু করলেন রাষ্ট্রপতি পত্নী।

ইতিমধ্যেই ভারতে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে মাস্ক পরা অত্যাবশ্যক বলে জানানো হয়েছে। প্রশাসন থেকে বারবার মাস্ক পরার বিষয়ে দেশনবাসীকে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। করোনা যাতে ভয়ঙ্করভাবে ছড়িয়ে না পরে তার জন্য সকলকে মাস্ক পরার এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের প্রায় সকলেই বলছেন, মাস্ক পরলে করোনাভাইরাস সংক্রামিত হওয়ার বা সংক্রামণ ছড়ানোর সম্ভাবনা কমে যায়।

ভারতের একাধিক রাজ্যে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও পরামর্শ দিয়ে বলেছেন, বাইরে বের হলে অবশ্যই মাস্ক পরুন, ঘরে থাকলেও মুখ ঢেকে রাখুন।

ফলে মাস্কের প্রয়োজনীয়তার কথা মাথায় রেখে নিজের হাতে মাস্ক বানিয়ে সকলকে মাস্ক পরার বার্তাই দিতে চেয়েছেন ভারতের রাষ্ট্রপতি পত্নী সবিতা কোবিন্দ।

এদিকে ভারতে প্রতিদিনই বেড়ে চলেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। গত ২৪ ঘন্টায় ভারতে নতুন করে ১৪০৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার সকালে ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য মতে, গোটা দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২১,৩৯৩ জন। গত ২৪ ঘন্টায় ভারতে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন ৪১ জন। ফলে দেশে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৮১ জন। মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪২৫৭ জন।