জাতিসংঘ বলেছে, করোনাভাইরাস মহামারি শেষে অপেক্ষা করছে ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ৷ ইতিমধ্যে বিশ্বের একটা বড় অংশে খাদ্যাভাব শুরু হয়ে গিয়েছে৷ এবং খুব শীঘ্রই তা দুর্ভিক্ষের আকার নেবে৷ কিছু অঞ্চলে ইতিমধ্যেই দুর্ভিক্ষ শুরু হয়ে গিয়েছে৷ অবিলম্বে পদক্ষেপ না করলে ভয়াবহ দুর্ভিক্ষের সাক্ষী থাকবে বিশ্ববাসী৷ বহু মানুষ না খেতে পেয়ে মারা যাবে৷ 

জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর ডেভিড বিসলের বলেন, ‘দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এবার মানব সভ্যতা সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছে৷ সিরিয়া, ইয়েমেনসহ একাধিক দেশে যুদ্ধ, আফ্রিকায় পঙ্গপালের হানা, লেবানন, কঙ্গো, সুদান ও ইথিওপিয়ায় একের পর এক প্রাকৃতি দুর্যোগ ও অর্থনৈতিক মন্দা- এসবের সঙ্গে করোনা মহামারী বিশ্বকে দুর্ভিক্ষের মুখে ঠেলে দিচ্ছে৷’ 

তিনি আরও বলেন, ‘বিশ্বে প্রায় ৮৩ কোটি মানুষ রাতে চরম ক্ষুধার জ্বালা নিয়ে ঘুমাতে যায়৷ সাড়ে ১৩ কোটি মানুষ প্রায় খেতেই পাচ্ছে না৷ করোনা পরিস্থিতির জেরে ২০২০ সালের শেষে আরও ১৩ কোটি মানুষ দুর্ভিক্ষের কবলে পড়বে৷ 

তিনি জানান, ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রামে ১০ কোটি মানুষের কাছে খাবার পৌঁছে দিচ্ছে৷ ৩ কোটি মানুষ এই প্রকল্পের ওপরেই বেঁচে আছে৷

জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর কয়েকদিন আগে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। সুস্থ হয়ে আবারও কাজে যোগ দিয়েছেন তিনি। তার এ সতর্কবার্তায় রীতিমতো অশনিসংকেত দেখছেন বিশেষজ্ঞরা।